‘ফারাজ হোসেন’ সাহসিকতা পুরস্কার

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৬, ১১:০৩

সাহস ডেস্ক

মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও জঙ্গিদের ধারাল অস্ত্রের সামনে দাঁড়িয়েছিলেন ১৯ বছরের ফারাজ হোসেন। বন্ধুকে ফেলে রেখে পালিয়ে যাননি তিনি। গোটা বিশ্ব পেয়েছে ফারাজ আইয়াজ হোসেনের সাহসিকতার পরিচয়। সেই সাহসিকতা তার জীবন কেড়ে নিয়েছে ঠিকই, কিন্তু তিনি হয়ে আছেন স্মরণীয়।

গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে হামলা করলো জঙ্গিরা। সেখানে ছিলেন দেশি-বিদেশি অনেকে। বেছে বেছে জঙ্গিরা হত্যা করতে শুরু করলো বিদেশিদের। দেশিদের কাছে সহযোগিতা চাইলো, তাহলে ছেড়ে দেওয়া হবে। সেই রেস্টুরেন্টে ছিলেন বাংলাদেশি তরুণ ফারাজ আইয়াজ হোসেন। সঙ্গে দুই বন্ধু। যুক্তরাষ্ট্রের ইমোরি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন তারা তিনজনই।  
 
জঙ্গিরা ফারাজকে সুযোগ দিলো, কিন্তু তিনি সে সুযোগ নিলেন না। ফারাজ ঘোষণা দিলেন বন্ধুদের বিপদের মুখে রেখে তিনি চলে যাবেন না। বন্ধুদের রক্ষা করতে প্রতিরোধ গড়ে তুললেন। সে রাতে ফারাজ ও তার বন্ধুরাসহ প্রাণ হারালেন অন্তত দু’ডজন নিরীহ মানুষ।

ফারাজ হোসেনের এই সাহসিকতায় উদ্বুদ্ধ হয়ে পেপসিকো গ্লোবাল ঘোষণা করেছে ‘ফারাজ হোসেন সাহসিকতা পুরস্কার’। বাংলাদেশের সেই সাহসী সন্তানেরা এ পুরস্কার পাবেন যারা-

* অনন্য ব্যক্তিগত সাহসিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন
* মানুষের সহায়তার জন্য অসামান্য কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার দৃষ্টান্ত দেখাবেন
* সর্বোচ্চ নৈতিক মূল্যবোধের দৃষ্টান্ত দেখাবেন

বাংলাদেশের অনূর্ধ্ব ৩০ বছরের কোনো পুরুষ কিংবা নারী এ পুরস্কারে ভূষিত হবেন। ২০১৬ থেকে পরবর্তী ২০ বছরের জন্য প্রতিবছর থাকবে এমন একটি পুরস্কার। বিজয়ীদের স্বীকৃতি সনদের পাশাপাশি দেওয়া হবে নগদ ১০ হাজার মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৮ লাখ টাকা।

এরই মধ্যে একটি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ঘোষণার কথা প্রকাশ করেছে পেপসিকো গ্লোবাল। তাতে বলা হয়েছে, মানবিকতা, সাহসিকতা ও মূল্যবোধের পতাকা উচ্চে তুলে ধরে ফারাজ আইয়াজ হোসেন আত্মত্যাগের বীরত্বের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে উঠে জীবনের শেষ মূহূর্তেও অসাধারণ চারিত্রিক দৃঢ়তার পরিচয় দিয়েছেন। প্রকৃত বন্ধুত্বের দৃষ্টান্ত স্থাপন করে বন্ধুদের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছেন। ভালোবাসা ও সহানুভূতির মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন গোষ্ঠী, ধর্ম ও জাতীয়তার মানুষের মানবিকতাকে একসূত্রে সংযুক্ত করেছেন।
ফারাজ হোসেনের মতোই সঙ্গী বা সহকর্মীর প্রতি সহমর্মিতার দৃষ্টান্ত হিসেবে কোনো ব্যক্তির সাহসিকতার স্বীকৃতি দেওয়ার লক্ষ্যেই ‘ফারাজ হোসেন সাহসিকতা পুরস্কার’ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পেপসিকো গ্লোবাল।

সাধারণের কাছে এ পুরস্কারের যোগ্য তরুণ-তরুণীকে খুঁজতে সহযোগিতা চেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। কারও কাছে এমন কোনো তরুণ কিংবা তরুণীর সন্ধান থাকলে, কিংবা জানা থাকলে তা +৮৮০১৭০৮১৩৩২৮৯ নম্বরে অথবা courageaward@faraazhossain.com এ যোগাযোগ করে জানাতে অনুরোধ করেছে পেপসিকো গ্লোবাল।
যোগাযোগ করতে হবে ২৭ অক্টোবর ২০১৬ তারিখের মধ্যে।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত বিচারকমণ্ডলী প্রস্তাবিতদের মধ্য থেকে একজনকে বিজয়ী ঘোষণা করবেন। তিনি পাবেন ২০১৬ সালের ফারাজ হোসেন সাহসিকতা পুরস্কার। যার মূল্যমান ১০ হাজার মার্কিন ডলার।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত