science-and-tech-27521-%E0%A6%B8%E0%A6%82%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A6-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B6%E0%A6%95%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A6%B0%E0%A6%93-%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%AE%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%97%E0%A6%B2 সংবাদ প্রকাশকদের আরও ক্ষমতা দেবে গুগল

সংবাদ প্রকাশকদের আরও ক্ষমতা দেবে গুগল

প্রকাশ | ০২ অক্টোবর ২০১৭, ১৮:২২

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইনে আরও বেশি পাঠক চায় এমন সংবাদ প্রকাশকদের সহায়তায় নিজেদের ‘বিতর্কিত’ নীতিমালা ‘ফার্স্ট ক্লিক ফ্রি’ বন্ধ করে দিচ্ছে মার্কিন ওয়েব জায়ান্ট গুগল। এই নীতিমালা অনুযায়ী পাঠকদের অর্থ পরিশোধ করতে প্রদর্শিত বাধা প্রদর্শনের আগে গুগল সার্চ আর গুগল নিউজে প্রকাশকদের অন্তত তিনটি বিনামূল্যের প্রতিবেদন সরবরাহ করতে হয়।

আইএএনএস-এর প্রতিবেদনে বলা হয়- গবেষণায় দেখা গেছে, মানুষ এখন সংবাদের জন্য অর্থ পরিশোধে আরও অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে।

সোমবার এক ব্লগপোস্টে গুগলের নিউজ ভাইস প্রেসিডেন্ট রিচার্ড গিংরাস বলেন, “নিজেদের ব্যবসায়িক কৌশল অনুযায়ী প্রকাশকরা তাদের গ্রাহকদের বিনামূল্যে কোনো প্রতিবেদন দেবে কিনা, আর যদি দেয়ও তবে কয়টা দেবে প্রকাশকরাই ঠিক করবেন- ‘ফ্লেক্সিবল স্যামপ্লিং’ নামের এই মডেলের জন্য আমরা আমাদের ‘ফার্স্ট ক্লিক ফ্রি’ নীতিমালা বন্ধ করতে যাচ্ছি।” 

‘ফার্স্ট ক্লিক ফ্রি’ মডেলটিকে ‘বিষাক্ত’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছে কয়েকটি বড় প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান।

রিচার্ড গিংরাস বলেন, “আমাদের নিজস্ব গবেষণা, প্রকাশকদের পরামর্শ আর সফলভাবে সাবস্ক্রিপশন সেবা পরিচালনা করা নিউ ইয়র্ক টাইমস ও ফিনান্সিয়াল টাইমস-এর সঙ্গে চালানো কয়েক মাসব্যাপী পরীক্ষায় আমাদের নতুন এই পদক্ষেপ বের হয়ে এসেছে।”

সাধারণত প্রকাশকরা চিহ্নিত করেছেন যে, মানুষকে তাদের পণ্য কিনতে বলার একমাত্র উপায় হচ্ছে বিনামূল্যে কনটেন্ট অ্যাকসেস দেওয়া। প্রচলিত ব্যবস্থায় মানুষ আগে থেকে ঠিক করা একটি সংখ্যা দেখতে পান, যা দিয়ে বোঝায় অর্থ পরিশোধ করতে বলার আগে তারা কতগুলো প্রতিবেদন দেখতে পারবেন।

গিংরাস বলেন, “প্রকাশকদের কয়টা প্রতিবেদন মানুষকে বিনামূল্যে দেওয়া হবে তা নির্ধারণ করতে আর সাবস্ক্রাইব করার সম্ভাবনা রয়েছে এমন গ্রাহকদের লক্ষ্য হিসেবে নিতে আমাদের পরামর্শ হচ্ছে দৈনিকের জায়গা মাসিক পরিমাপ করা।”

অধিকাংশ প্রকাশক মাসিক ১০টি প্রতিবেদনকে একটি ভালো শুরুর পয়েন্ট হিসেবে দেখে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।