কুষ্টিয়ায় ছেলের লাঠির আঘাতে প্রাণ গেলো বাবার

প্রকাশ : ২০ মে ২০২২, ১৩:২৮

সাহস ডেস্ক

কুষ্টিয়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে ছেলের লাঠির আঘাতে বাবার মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (২০ মে) সকালে কুষ্টিয়া পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের চর মিলপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত বাবু হোসেন (৪২) কুষ্টিয়া শহরের চর মিলপাড়া এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে। অভিযুক্ত রমিজ হোসেন (১৮) নিহত বাবুর দ্বিতীয় ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী নিহত বাবু শেখের ছোট ছেলে রইজ জানান, তার পিতা বাবু শেখ ঢাকায় ফেরি করে খেলনা বিক্রি করতেন। কয়েক দিন আগে তিনি ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য ঢাকা থেকে নিজ বাড়িতে আসেন। বাড়িতে আসার পর থেকে তার মেজো ছেলে রমিজ (২০) এর সঙ্গে সংসারে টাকা দেওয়া নিয়ে ঝগড়া বিবাদ চলতে থাকে। শুক্রবার (২০ মে) সকালে সংসারের খরচের জন্য বাবু শেখ ছেলে রমিজের কাছে টাকা চাইলে টাকা দেননি তিনি। এ সময় পিতা পুত্রের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে পিতার ওপর হামলা করেন রমিজ। রমিজের হাতে থাকা লাঠির আঘাতে পিতা বাবু শেখ মাটিয়ে লুটিয়ে পড়েন। এর পর পরই পালিয়ে যান রমিজ। পরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা গুরুতর আহত অবস্থায় বাবু শেখকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুদিন ধরে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাবু ও তার ছেলে রমিজের মধ্যে ঝগড়া চলে আসছিল। শুক্রবার (২০ মে) সকালে দুজনের মধ্যে এ নিয়ে কথা-কাটাকাটি ও তুমুল ঝগড়া হয়। কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে ছেলে বাঁশ দিয়ে আঘাত করলে বাবা গুরুতর আহত হন। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুষ্টিয়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।

নিহত বাবুর স্ত্রী বলেন, আমি পরের বাড়িতে কাজ করে খাই। আর ছেলে দড়ি কারখানায় কাজ করে। তার বাবাকে টাকা না দেওয়ায় ঝগড়া হয়। ঝগড়ার জেরে বাঁশ দিয়ে বাবার মাথায় আঘাত করে ছেলে। এতে আমার স্বামীর মৃত্যু হয়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল আলম জানান, পারিবারিক ঝগড়াকে কেন্দ্র করে হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অপরাধীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এ ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি।

সাহস২৪.কম/এএম/এসকে.

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?