চকবাজারের প্লাস্টিক কারখানায় আগুন: ৬ জনের মৃতদেহ উদ্ধার

প্রকাশ : ১৫ আগস্ট ২০২২, ১৭:৫৭

সাহস ডেস্ক

রাজধানীর চকবাজারের কামালবাগ দেবীদ্বারঘাট এলাকার একটি প্লাস্টিক কারখানায় আগুন লাগার ঘটনায় ৬ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকেলে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ওয়্যারহাউস ইন্সপেক্টর আনোয়ারুল ইসলাম।

প্লাস্টিক কারখানায় বেলা ১২টার দিকে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট এসে দুই ঘণ্টা ধরে চেষ্টা চালানোর পর বেলা ২টা ২০ মিনিটের দিকে তা নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুন নিয়ন্ত্রণের পর কয়েকজন নিখোঁজ ছিল বলে জানা যায়। এরপর একের পর এক লাশ উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। নিহত ব্যক্তিরা সবাই স্থানীয় বরিশাল হোটেলের কর্মচারী। রাতে ডিউটি করে হোটেলের ওপর একটি রুমে তারা ঘুমাচ্ছিলেন।

ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (অপারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, যে ভবনে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে, সেই ভবনের নিচতলায় ‘বরিশাল হোটেল’ নামে একটি হোটেল আছে। সেখান থেকে আগুনের সূত্রপাত। গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে আগুন লেগেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিস। তিনি আরও বলেন, যে ভবনে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে, সেটাসহ আশপাশের কোনো ভবন নির্মাণের নিয়মনীতি মানা হয়নি। এ কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে এত দেরি হয়েছে।

সরকারি জমি লিজ নিয়ে এসব কারখানা গড়ে তোলা হয়েছে। যে হোটেল থেকে আগুন লেগেছে, সেখানে আগে গ্যাসের লাইন ছিল। বিল বকেয়া থাকায় হোটেলটির গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছিল। তখন থেকে তারা গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করছে। বলেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রত্যক্ষদর্শী। তিনি আরও বলেন, আজ (সোমবার) আনুমানিক ১২টার দিকে বিকট শব্দ শুনে বের হয়ে দেখেন ওই হোটেলে আগুন জ্বলছে। এরপর সেখান থেকে আগুন আশপাশে ছড়িয়ে পড়ে।

ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক বজলুর রশীদ বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের চেহারা চেনা গেছে। বাকি ৫ জনের শরীর যেভাবে দগ্ধ হয়েছে, তাদের চেনা যাচ্ছে না। তাদের সবাইকে শোয়া অবস্থায় পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, তারা ঘুমন্ত অবস্থায় দগ্ধ হয়েছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনাস্থলে আরও মরদেহ আছে কি না খোঁজ চলছে।’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা এখন শূন্যের কোঠায় পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের। আপনিও কি তাই মনে করেন?