স্প্যানিশ লা লিগা

ভিনিসিয়ুসের হ্যাটট্রিকে বিদ্ধস্ত লেভান্তে

প্রকাশ : ১৩ মে ২০২২, ১৭:৪০

সাহস ডেস্ক

স্প্যানিশ লা লিগার ম্যাচে ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের হ্যাটট্রিকে পয়েন্ট তালিকার তলানির দল লেভান্তেকে বিদ্ধস্ত করেছে চলতি মৌসুমের শিরোপা আগেই নিশ্চিত করা রিয়াল মাদ্রিদ। একই সাথে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে ইয়ুর্গেন ক্লপের লিভারপুলকে সতর্ক করে নিজেদের প্রস্তুতিটাও সেরে ফেলল স্প্যানিশ দলটি।

বৃহস্পতিবার (১৩ মে) ঘরের মাঠ শান্তিয়াগো বার্নাবুতে নিচের সারির দল লেভান্তেকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা। এই হারে অবনমন নিশ্চিত হয়ে গেছে লেভান্তের। রিয়ালের হয়ে হ্যাটট্রিক করেছেন ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। একটি করে গোল তিনটি করেছেন ফারল্যান্ড মেন্ডি, করিম বেনজেমা ও রদ্রিগো।

লিগ শিরোপা নিশ্চিত হওয়ার পর এই ম্যাচে প্রথম বেনজেমা, ভিনিসিয়ুস, মদরিচকে একসঙ্গে নামিয়েছেন রিয়াল কোচ আনচেলত্তি। তার ফল? ভিনির হ্যাটট্রিক, বেনজেমার নিজের এক গোল আর ভিনিকে গোল বানিয়ে দেওয়ার পথে পায়ের নাচন, আর মদরিচের গোল বানিয়ে দেওয়ার চিরায়ত অভ্যাস। প্রথমার্ধেই তিনটি গোল করিয়েছেন মদরিচ! 

এদিন ম্যাচের ১৩ মিনিটে মদরিচের অসাধারণ ভাসানো পাস ধরে রিয়ালকে এগিয়ে দেন মেন্দি। তার ছয় মিনিট পর ভিনিসিয়ুসের ক্রসে দারুণ হেডে দ্বিতীয় গোলটি করেন করিম বেনজেমা। পরে ম্যাচের ৩০ মিনিটে বেনজেমার দারুণ থ্রু ধরে গোল করেছিলেন রদ্রিগো, কিন্তু অফসাইডের কারণে গোলটি বাতিল হয়ে যায়। এর চার মিনিট পরে আবারও জালে বল জড়ালেন রদ্রিগো। মদরিচের পাসেই গোলটি করলেন তিনি। বিরতিতে যাওয়ার আগে আবারও রিয়ালের গোল। ম্যাচের ৪৫তম মিনিটে বক্সের বাইরে মদরিচের সঙ্গে বল দেওয়া-নেওয়ার পর বাঁ পায়ের দারুণ শটে ম্যাচে প্রথম গোলটি করে ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। এই ৪-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় রিয়াল মাদ্রিদ।

বিরতি থেকে ফিরে এসে খেলার ধার বজায় রেখেছে রিয়াল। এর ফেল ৫৮ মিনিটেই ভালভার্দের পাস ধরে দারুণ চিপে দ্বিতীয় গোলটি করে ফেলেছিল ভিনিসিয়ুস। কিন্তু এটিও অফসাইডের কারণে গোলটি বাতিল করে দিয়েছে রেফারি। তবে তার দশ মিনিট পরই দুঃখ ভুললেন ভিনি! গোলটা বেনজেমার নামে হলেই হয়তো ভালো হতো। দারুণ গতিতে বক্সে ঢোকার পর পায়ের নাচনে যেভাবে লেভান্তে গোলকিপারকে মাটিতে লুটিয়ে পড়তে বাধ্য করেছেন বেনজেমা, সেটি চোখধাঁধানো। গোলকিপারকে পরাস্ত করার পর বলটা বাড়িয়ে দিয়েছেন পোস্টের দুই গজ সামনে ফাঁকায় দাঁড়ানো ভিনিকে। সেখান থেকে বল জালে জড়িয়ে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করে ফেলেনে ভিনিসিয়ুস। এরপর অপেক্ষা ছিল শুধু হ্যাটট্রিকের। ম্যাচের ৮৩ মিনিটে সেটিও পুরণ করে ফেলেন ভিনিসিয়ুস। পরে বাকি সময়ে আর কোনো গোল না হলে এই ৬-০ গোলের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা।

এদিন আক্রমণে দারুণ খেলেছে রিয়াল। দ্রুতগতিতে উঠে যাওয়া, এক স্পর্শের ফুটবলে বল দেওয়া-নেওয়া, ফ্লিক-স্টেপ ওভারে মুগ্ধতা ছড়ানো...। রিয়ালের ছয় গোলে একটির চেয়ে অন্যটি বেশি সুন্দর। লেভান্তে গোলকিপার হাজারো 'সেইভ' না করলে, অফসাইডে গোল বাতিল না হলে রিয়ালের গোলসংখ্যা দুই অঙ্ক ছাড়িয়ে যেত।

এই জয়ে ৩৬ ম্যাচে ৮৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষেই আছে শিরোপা নিশ্চিত করা রিয়াল মাদ্রিদ। সমান ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের একদম তলানিতে আছে লেভান্তে। সমান ম্যাচে ৭২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয়তে আছে রিয়ালের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনা। সমান ম্যাচে ৬৭ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয়তে আছে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। সমান ম্যাচে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের চতুর্থস্থানে আছে সেভিয়া। সমান ম্যাচে ৬১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের ৫ম স্থানে আছে রিয়াল বেটিস।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
আপনি কী মনে করেন করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পদক্ষেপ সন্তোষজনক?